English Version
আপডেট : ২৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ১২:৫০

জাতীয় পতাকার আদলে পাপোষ বানালো বিমান!

অনলাইন ডেস্ক
জাতীয় পতাকার আদলে পাপোষ বানালো বিমান!

জাতীয় পতাকার আদলে পাপোষ ব্যবহার করে সমালোচনার মুখে পড়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। থাইল্যান্ডের ব্যাংককে সুবর্ণভূমি বিমানবন্দরে বিমানের একটি কাউন্টারের সামনে রাখা হয়েছে বিমানের লোগো সংবলিত এই পাপোষ। কাউন্টারটি মূলত ভিআইপি, বিজনেস ক্লাস ও লয়্যালটি ক্লাবের গোল্ডকার্ডধারী যাত্রীদের জন্য।

ব্যাংকক বিমানবন্দরে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার আদলে বানানো পাপোষব্যাংককের সুবর্ণভূমি বিমানবন্দরে জাতীয় পতাকার আদলে পাপোষ দেখে ক্ষুব্ধ হয়েছেন অনেকে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এ নিয়ে সমালোচনা ও তীর্যক মন্তব্য করছেন তারা।
চলচ্চিত্র নির্মাতা শাহনেওয়াজ কাকলী ফেসবুকে লিখেছেন, ‘বিদেশের মাটিতে দেশ ও জাতির সম্মানকে উজ্জ্বল করেছে বাংলাদেশ বিমান! ঘটনাস্থল ব্যাংকক বিমানবন্দর। সেখানে বিমান এয়ারলাইন্সের পাপোষ ছাড়া অন্য কোনও দেশের পাপোষ নেই। কারও এটি প্রয়োজন হয়নি। এর দায়ভার কার? সুহৃদরা কি একটু আওয়াজ দেবেন? কারা এগুলোতে পা মাড়িয়ে চলাচল করেন ইতোমধ্যে আপনারা বুঝে গেছেন। আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি।’
মহিউদ্দিন মামুন নামের একজন লিখেছেন, ‘লাল-সবুজের জাতীয় পতাকা বাংলদেশ বিমান কীভাবে পায়ের পাপোষ হিসেবে ব্যবহার করলো! কেন জাতীয় পতাকার এই অবমাননা? যে বা যারা এই আইডিয়া দিয়েছে তাদের শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক।’
পাপোষ নিয়ে সমালোচনা হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন ব্যাংককে বিমানের কান্ট্রি ম্যানেজার নাজমুল হোসেন। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বললেন, ‘বিমানের প্রধান কার্যালয়ের ডিজাইনেই পাপোষটি বানানো হয়েছে। এটি জাতীয় পতাকা নয়। বিমানের লোগোর চারপাশে সবুজ রঙ থাকায় পতাকার সঙ্গে সাদৃশ্য রয়েছে।’
এ প্রসঙ্গে জানতে বিমানের প্রধান কার্যালয়ে যোগাযোগ করা হলে কোনও কর্মকর্তা মন্তব্য করতে রাজি হননি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা জানান, পাপোষটি দ্রুত সরিয়ে ফেলতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে কারা এটি ডিজাইন করেছেন সেই খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।’ 

ছবি: শাহনেওয়াজ কাকলীর ফেসবুক থেকে।