English Version
আপডেট : ৩ নভেম্বর, ২০১৭ ১৯:১৩

খাল উদ্ধারে অভিযানের ঘোষণা মেয়রের

অনলাইন ডেস্ক
খাল উদ্ধারে অভিযানের ঘোষণা মেয়রের

কামরাঙ্গীচরের বালুনগর খাল উদ্ধারের মধ্যে দিয়ে রাজধানীর বেদখল খাল উদ্ধার অভিযানের ঘোষণা দিলেন ঢাকা উত্তরের মেয়র সাঈদ খোকন।
বৃহস্পতিবার রাজধানীর চাঁনখারপুলে জনতার মুখোমুখি জনপ্রতিনিধি অনুষ্ঠানে তিনি এ ঘোষণা দেন।

মেয়র বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলেই এই শহরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। কারণ ভূমিদস্যুরা খাল দখল করে রেখেছে। জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য দ্রুত খালগুলোকে দখলমুক্ত করা হবে। যে খালগুলোতে আইনি জটিলতা নাই সেগুলো যতক্ষণ পর্যন্ত অবৈধ দখলমুক্ত না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান চলবে।

সাঈদ খোকন বলেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের খাল ছিল অনেকগুলো। এরমধ্যে চিহ্নিত খাল আছে ছয়টি। আরো দু-চারটি খাল বাড়তে পারে। খালগুলো এমনভাবে দখল হয়েছে, এর ওপর বিল্ডিং হয়েছে। কোথায় খাল ছিল তা এখন বোঝারও উপায় নাই।

খোকন জানান, গত আড়াই বছরে আমরা অনেক রাস্তা-ঘাট নির্মাণ ও সংস্কার করেছি। ঢাকার উন্নয়নের বড় অন্তরায় জলবদ্ধতা। এবছর এপ্রিল থেকে বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। সাধারণত বৃষ্টি শুরু হয় জুন-জুলাই মাসে। আবহাওয়ার বৈরিতার কারণে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এর ফলে উন্নয়ন ব্যাহত হয়েছে।

মেয়র বলেন, একটা সময় সিটি করপোরেশন সরকারি সম্পত্তি লুটপাটের জায়গায় ছিলো। এখন আমরা রাতদিন কাজ করছি। নগরীর যেসব খেলার মাঠ, পার্ক দখল হয়েছিলো সেগুলো উদ্ধার করছি। এই মাঠ-পার্কগুলো উন্নয়নে ‘জলসবুজে ঢাকা’ নামে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছি। আগামী বছর প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে।

তিনি বলেন, বর্জ্য পরিষ্কারে বিষয়ে নগরবাসীর সচেতনতা প্রয়োজন। রাস্তা-ঘাটে ছড়িয়ে ছিটিয়ে এখন বিভিন্ন বর্জ্য পড়ে থাকে। পরিচ্ছন্ন কর্মীরা ঢাকাকে পরিষ্কার রাখতে কাজ করে যাচ্ছে। তবে ঢাকা পরিষ্কার রাখা আমার একার পক্ষে সম্ভব না। নগরবাসীকে সচেতন হতে হবে। নিজেরা বদলালে শহর বদলাবে।

২৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর উমর বিন আব্দুল আজিজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ডিএসসিসি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বিলাল, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শেখ সালাউদ্দিন, তিতাস গ্যাস, ওয়াসা কর্মকর্তারাসহ সবস্তরের মানুষ।