English Version
আপডেট : ১২ জুন, ২০১৭ ১৬:৪৩

নগরে উপভোগের বৃষ্টিতেও ভোগান্তি

অনলাইন ডেস্ক
নগরে উপভোগের বৃষ্টিতেও ভোগান্তি

নিম্নচাপের প্রভাবে সারাদেশে সোমবার ভোর থেকেই বৃষ্টি হচ্ছে। আবহাওয়া অধিদপ্তর অবশ্য জানিয়েই রেখেছে, আজ সোমবার সারাদিনই বৃষ্টি হতে পারে।

দেশের উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলে কমবেশি বৃষ্টিপাত হয়েই চলছে। রাজধানী ঢাকাতেও ভোর থেকে টানা বৃষ্টি হচ্ছে। মিরপুরের কিছু কিছু এলাকা বেশকিছু রাস্তাঘাট ডুবে গেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
এদিকে রাজধানীতে বৃষ্টিপাতের ফলে জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে এসেছে। রাজধানীর মিরপুর, বাড্ডা, মৌচাক, মালিবাগ, মগবাজার এলাকার মানুষজন দারুণ দুর্ভোগে পড়েছেন। ওইসব এলাকায় রাস্তা কাটার ফলে যানবাহন চলাচল করতে পারছে না। বৃষ্টির কারণে জ্যাম প্রকট আকার ধারণ করেছে। এদিকে মিরপুরের কালশী, পল্লবী থেকে মিরপুর ১০ নম্বর পর্যন্ত যানবহন ধীরগতিতে চলাচল করছে। কালশী থেকে পুরবী হল পর্যন্ত রাস্তায় পানি উঠে গেছে।

মিরপুর ১১ নম্বরের বাসিন্দা সোলায়মান আলি কালের কণ্ঠকে বলেন, যাওয়ার কথা ছিল ধানমন্ডির দিকে কিন্তু কীভাবে যাবো বুঝতেছি না। শুধু বৃষ্টি হলে সমস্যা ছিল না। রাস্তাঘাট কেটে ফেলার ফলে গাড়ি শম্বুক গতিতে এগোচ্ছে। হাঁটা চলাফেরা করাও সম্ভব হচ্ছে না। কখন কে গর্তে পড়ে যায় বলা যায় না।

একই অভিযোগ জানিয়েছেন শাহজাদপুর এলাকার তন্ময় চাকী কালের কণ্ঠকে বলেন, প্রগতি সরণিকে মরণফাঁদে পরিণত করা হয়েছে। এই বৃষ্টীতে সেটা আরো ভয়ংকর রুপ ধারণ করেছে। ভোগান্তির শেষ নেই। পরিবার নিয়ে কেনাকাটা করতে যাওয়ার কথা ছিল সেসব হচ্ছে না।

তবে তীব্র দাবাদহের পর অসময়ের এই বৃষ্টিকে অনেকেই উপভোগেরও করে নিয়েছেন। বৃষ্টিতে আলস্য সময় কাটাচ্ছেন অনেকেই। কাঠফাঁটা রোদের মাঝে হঠাৎ বৃষ্টি যেন স্বস্তি এনে দিয়েছে নাগরিক জীবনে। আহসান কবির বলেন, টানা রোদের এই বৃষ্টি কিছুটা স্বস্তির বটে। যদিও ভোগান্তি সবসময় থাকবেই। হয়তো এখন কিছুটা বেশি। কিন্তু টানা দাবাদহের মাঝে এই বৃষ্টি কিছুটা শান্তিরও বটে।     

আবহাওয়ার বিশেষ বুলেটিনে জানানো হয়, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় সৃষ্ট নিম্নচাপটি উত্তর পূর্বদিকে অগ্রসর হয়ে আজ সকাল ৬টার দিকে ভোলা ও এর আশপাশের উপকূলীয় এলাকায় অবস্থান করছিল। নিম্নচাপটি আরও উত্তর ও উত্তর পূর্বে স্থলভাগের দিকে অগ্রসর হবে। এর প্রভাবে সারা দেশের বিভিন্ন এলাকায় বৃষ্টি চলবে।

উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশ উপকূল ও সমুদ্রবন্দরের ওপর দিয়ে আজ ঝড়ো বাতাস বয়ে যেতে পারে। নিম্নচাপের প্রভাবে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এলাকার চরাঞ্চলে স্বাভাবিকের চেয়ে এক থেকে দুই ফুট বেশি জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত নৌযান ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে। চট্টগ্রাম, মোংলা, পায়রা সমুদ্রবন্দর ও কক্সবাজারকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।