English Version
আপডেট : ২৬ অক্টোবর, ২০১৭ ১৯:২৩

বিএনপিতে শূন্যতা!

অনলাইন ডেস্ক
বিএনপিতে শূন্যতা!

বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সংখ্যা দিন দিন কমছে। ২০১৬ সালের ৬ আগস্ট দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ৫০২ জন সদস্য বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করেন। ওই কমিটিতে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য হয়েছেন ১৯ জন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা রাখা হয়েছে ৭৩ জনকে, ভাইস-চেয়ারম্যান হয়েছেন ৩৫ জন এবং যুগ্ম মহাসচিব হয়েছেন ৭ জন। তবে ওই কমিটি ঘোষণার সময় স্থায়ী কমিটির দুজন সদস্যের নাম বাদ রাখা হয়।

নতুন ওই দুই নাম যুক্ত করার আগেই আরও ফাঁকা হতে থাকে স্থায়ী কমিটির আসন। গত বছর ২৭ সেপ্টেম্বর অসুস্থতা জনিত কারণে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহ মারা যান। গত সোমবার (২৩ অক্টোবর) দিবাগত রাত ১টায় দলের আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার অসুস্থতার কারণে মারা যান। এ ছাড়াও স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য তরিকুল ইসলাম বাধ্যক্যজনিত কারণে অসুস্থতায় ভুগছেন। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর নেয়া হয়েছে। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্যে ১৯ জন উল্লেখ থাকলেও দুটি পদ খালি রয়েছে। এদিকে স্থায়ী কমিটির ২ সদস্য মারা গেছেন। সে হিসেবে বর্তমানে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য রয়েছেন ১৫ জন।

জানা গেছে, এই ১৫ জন সদস্যের মধ্যে অনেক সদস্যই শারীরিক বিভিন্ন সমস্যার কারণে দলীয় কার্যক্রমের তেমন সক্রিয় ভূমিকা রাখতে পারছেন না।
দলের দায়িত্বশীল ও সিনিয়র নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, শুধু স্থায়ী কমিটিতেই নয়, ভাইস চেয়ারম্যানসহ কেন্দ্রীয় কমিটির অনেক পদেই শুন্যতা রয়েছে। আবার অনেকই দায়িত্ব পাবার পরে দলটির এক নেতা পদ নীতির কারণে এবং অনেকে অভিমানেও পদ ছেড়েছেন। তবে কবে নাগাত এইসব শূণ্য পদে নতুন সদস্য আসবে তার সঠিক কোনো তথ্যও জানা নেই এসব নেতাদের কাছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির যেসব নেতা আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন তাদের শূন্যতা কখনো পূরণ হবার নয়। এম কে আনোয়ারের মত নেতাকে হারিয়ে আমরা অসহায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক সিনিয়র নেতা বিডি২৪লাইভকে বলেন, বিএনপির অনেক নেতাই কেউ প্রাকৃতিক নিয়মে কেউবা স্ব ইচ্ছায় পদ ছেড়ে দিয়েছেন। তবে ওই শূণ্য পদ গুলোতে নতুন করে কাউকে নেয়া হয়নি। কবে নাগাদ নেয়া হবে সে বিষয়েও সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য জানা নেই।

তিনি আরও বলেন, দলের কাঠামো ঠিক রাখতে ও গতি ফেরাতে ওই সব শূণ্য পদগুলো পূরণ করা খুব জরুরি। প্রায় তিন মাস পর আমাদের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া চিকিৎসা শেষে লন্ডন থেকে এসেছেন। আমরা আশা করছি খুব শ্রীঘ্রই আমরা আবারও আমাদের গতি ফিরে পাব বলেও মন্তব্য করেন তিনি।