English Version
আপডেট : ১৩ আগস্ট, ২০১৭ ১৭:২৩

শামীম ওসমানের সমাবেশে ড্রোন আতঙ্ক

অনলাইন ডেস্ক
শামীম ওসমানের সমাবেশে ড্রোন আতঙ্ক

শনিবার বিকেল ৪টা ১৫ মিনিট। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবাষির্কী পালন উপলক্ষে আয়োজিত শোকর‌্যালি পূর্ব সমাবেশে বক্তব্য দিচ্ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। এ সময় শোকর‌্যালি পর্যবেক্ষণের জন্য উপরে রাখা ড্রোন ক্যামেরা নিচে নেমে পড়লে আতঙ্কে ছোটাছুটি করতে থাকেন নেতাকর্মীরা। অনেকে দৌড়ে আশপাশের দোকানের ভেতর ঢুকে দোকানপাট বন্ধ করে দেন। এতে শোকর‌্যালি পূর্ব সমাবেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়।
এদিকে ড্রোন আতঙ্কে যখন নেতাকর্মীরা ছোটাছুটি করছিলেন তখন শামীম ওসমান তার বক্তৃতা থামিয়ে নিজেই ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। শেখ হাসিনার ভয় নাই, রাজপথ ছাড়ি নাই’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন। শামীম ওসমানের এমন স্লোগানে মুখর হয়ে ওঠে পুরো সমাবেশ স্থল।

 
পরে নিরাপত্তায় নিয়োজিত শতাধিক পুলিশ সদস্য সমাবেশ মঞ্চের আশপাশে এসে অবস্থান নিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন এবং মানুষকে ছোটাছুটি করতে নিষেধ করা করেন। সমাবেশে আতঙ্ক সৃষ্টি হওয়ায় পরে শামীম ওসমান তার বক্তব্য সংক্ষিপ্ত করে শোকর‌্যালি বের করেন।
নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিন পারভেজ বলেন, ড্রোনের কারণে মানুষ ছোটাছুটি করেছে কিনা সঠিক বলতে পারছি না। তবে শোকর‌্যালিতে অতিরিক্ত লোকের চাপ থাকায় মানুষ ছোটাছুটি করেছে। অল্প সময়ের জন্য এমন পরিস্থিতি হয়েছিল। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। সমাবেশের সম্পূর্ণ অংশ ভিডিও করে রাখার জন্য আয়োজকরা ড্রোনের ব্যবস্থা করেছিল বলেও তিনি জানান।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ২০০১ সালের ১৬ জুন নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়া আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামলার পর মানুষের মাঝে যেমন আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছিল- আজ শামীম ওসমানের নেতৃত্বে শোক র‌্যালি পূর্ব সমাবেশে ড্রোন নিচে নামার পর কিছুক্ষণের জন্য তেমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। তবে শামীম ওসমানের সাহসী ভূমিকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।