English Version
আপডেট : ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১১:৪৯

ভয়ঙ্কর দেশের তালিকায় ১৪ নম্বরে বাংলাদেশ!

অনলাইন ডেস্ক
ভয়ঙ্কর দেশের তালিকায় ১৪ নম্বরে বাংলাদেশ!

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম সংস্থাটি পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ এবং ভয়ঙ্করতম দেশগুলোর একটি তালিকা প্রকাশ করেছে। এই তালিকায় বাংলাদেশের নামও উঠে এসেছে। পৃথিবীর অন্তত ১৩৬টি রাষ্ট্রকে নিরাপদ ও ভয়ঙ্কর দেশের তালিকায় রাখা হয়েছে। ব্যবসায়িক নিরাপত্তা, সন্ত্রাসবাদ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ইত্যাদি বিষয় মাথায় রেখে তালিকাটি প্রস্তুত করা হয়েছে। সংস্থাটি বিশ্বব্যাপী পর্যটকদের সুচিন্তিত ও নিরাপদ ভ্রমণের জন্য প্রতিবছর এই তালিকা প্রকাশ করে। 

সংস্থাটির তালিকা বিবেচনায় পৃথিবীর ভয়ঙ্করতম দেশ হিসেবে এক নম্বরে আছে কলম্বিয়া। আর এই তালিকায় পৃথিবীর ১৪তম ভয়ঙ্কর দেশ হিসেবে বাংলাদেশের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। বাংলাদেশ জঙ্গি কার্যক্রম থেকে শুরু করে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা ও অস্থিরতা ছাড়াও বন্যা ভূমি ধ্বসের মতো প্রকৃতিক দুর্যোগ গুলো এর নেপথ্যে কাজ করেছে ।

পৃথিবীর ভয়ঙ্করতম দেশের ওই তালিকায় এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে পাকিস্তান সবচেয়ে এগিয়ে। দেশটি ভয়ঙ্করতার দিক থেকে ৪র্থ অবস্থানে রয়েছে। ১১তম অবস্থানে ফিলিপাইন এবং ১৯তম স্থানে রয়েছে থাইল্যান্ডের নাম। তবে রাষ্ট্রীয় ইন্ধনে রোহিঙ্গাদের উপর বর্বর হামলা চালানো সত্ত্বে মিয়ানমারের নাম তালিকায় নেই।

তবে পৃথিবীর ভয়ঙ্কর দেশের তালিকায় ঠাঁই করে নেওয়া বেশিরভাগ দেশই আফ্রিকার। এসব দেশের মধ্যে ক্রমান্বয়ে আছে ইয়েমেন, নাইজেরিয়া, মিশর, কেনিয়া, লেবানন, মালি, চাদ, দক্ষিণ আফ্রিকা ও কঙ্গো। মধ্য আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে হন্ডুরাস, গুয়াতেমালা ও জ্যামাইকার নাম। দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের দুটি দেশ হলো- কলাম্বিয়া ও ভেনিজুয়েলার নাম। আর ইউরোপের একমাত্র দেশ হিসেবে তালিকার ১০ নম্বরে আছে ইউক্রেন।

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের বার্ষিক এই তালিকাটি পর্যটনের ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সারা বিশ্বের পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমণের জন্যই মূলত সংস্থাটি এ ধরনের তালিকা তৈরি করে প্রকাশ করে। সূত্র : ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম